Tuesday 3rd of August, 2021 | 3:14 AM

বীরগঞ্জে কৃষকদের মাঝে আনন্দের সমারোহ; রেকর্ড পরিমাণ ধান উৎপাদনের সম্ভাবনা

ডেইলি দিনাজপুর
  • শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২১

মোঃ নাজমুল ইসলাম,  বীরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ শস্যভান্ডার হিসেবে পরিচিত দিনাজপুরের বীরগঞ্জ  উপজেলার চারদিকে এখন ঘন সবুজের সমারোহ। ঢেউয়ের মতো খেলে যাচ্ছে ধান গাছের সবুজ পাতা ও শীষ।এই সবুজের ঢেউয়ে দুলছে কৃষকের স্বপ্ন।

দিগন্ত জোড়া সবুজ ফসলের মাঠ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে আরও বিকশিত করে তুলেছে। কদিন পরেই সবুজ ধানগাছ হলুদ বর্ণ ধারণ করবে। এরপর সোনালী ধানের শীষে ঝলমল করবে ফসলের মাঠ। মাঠ ভরা ফসল দেখে কৃষকদের চোখে মুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের ছোঁয়া। আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে যদি কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটে তাহলে বীরগঞ্জে এবার ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা করছেন বীরগঞ্জের কৃষকরা।

বীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবীদ আবু রেজা  মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, চলতি মৌসুমে এ উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ১৫ হাজার ৪৩০ হেক্টর জমিতে ইরি-বোর ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও তার চেয়ে বেশি জমিতে চাষাবাদ করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই ইরি-বোর ধানের শীষ বের হয়েছে। তবে কিছু কিছু জমিতে ধানে রোগ দেখা দিলেও সেটি প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। তারপরও সতর্কতার সাথে জমিতে কীটনাশক প্রয়োগ করছে কৃষকরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার ১নং শিবরামপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে মাঠে ইরি-বোরো ধানের চাষাবাদে ভরে গেছে, ইরি-বোরো ধান লাভ জনক ফসল। তাই কৃষকরা বোরো মৌসুমকে ঘিরেই নানা স্বপ্ন দেখে। এ বছর নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই চাষিরা ধান রোপণ করেছেন। যথা সময়ে সার, বালাইনাশক ও সেচ দিতে পারায় ধান গাছ উজ্জীবিত রয়েছে।

স্থানীয় কৃষকরা জানান, কৃষি অফিসের সহযোগিতা ও পরামর্শে চাষাবাদকৃত ইরি-বোরো ধান গতবারের চেয়ে এবার ভালো ফলন হয়েছে। আর কয়েক দিন পরই ধান কাটা শুরু করা যাবে। এখন পর্যন্ত ধানের কোনো ক্ষতি হয়নি। এবছর বিদ্যুৎ ও সারের কোনো সংকট দেখা দেয়নি। যার কারণে ফসলের চেহারাও অনেক সুন্দর হয়েছে। সবল-সতেজ চারাগুলো দেখে মনে হয় ধানের ব্যাপক ফলন হবে। তারা আরও জানান, যদি কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না আসে তবে এবার ধানের বাম্পার ফলন হবে ইনশাল্লাহ।

বীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবীদ আবু রেজা মোঃ আসাদুজ্জাম বলেন, দেশে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় ধান কাটার জন্য  বীরগঞ্জ উপজেলা থেকে বিভিন্ন জেলায় ১ হাজারের অধিক শ্রমিক পাঠানো হয়েছে এবং বীরগঞ্জেও কোনো রকম শ্রমিকের ঘার্তী হবে না। তাছাড়া  শ্রমিকদের মাঝে সচেতন মূলক লিফলেট বিতরণ করে করোনার প্রলবন কমাতে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলন ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্য নিয়ে আমরা মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের কাজ করে আসছি। এ পর্যন্ত বোরো চাষে কোনো প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়নি। আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে। তাই ধানের বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
©  2019 All rights reserved by  dailydinajpur.com
Theme Dwonload From Ashraftech.Com
ThemesBazar-Jowfhowo